প্রচ্ছদ

সিলেটের ঐতিহ্যবাহী সেই ক্বীন ব্রিজে আর চলবে না কোন যানবাহন

০২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২২:১৫

অপরাধ বাণী

অপরাধ বাণী : বন্ধ করে দেয়া হয়েছে সিলেটের ক্বীন ব্রিজের ওপর যান চলাচল। এখন থেকে এই ব্রিজের ওপর দিয়ে কোনো যানবাহন চলবে না। কেবলমাত্র মানুষ হেঁটে ওই ব্রিজ পাড়ি দিতে পারবেন। এ কারণে সিটি করপোরেশন থেকে নেয়া হয়েছে উদ্যোগও। সিলেটের এই ব্রিজকে সংরক্ষণ করে ঐতিহ্য হিসেবে টিকিয়ে রাখার পরিকল্পনাও করা হচ্ছে। তবে- এখনই সবকিছু চূড়ান্ত হচ্ছে না। সিলেটের অন্যতম স্মারক হচ্ছে সুরমার ওপর স্থাপিত ঐতিহাসিক ক্বীন ব্রিজ। পাশেই হচ্ছে আলী আমজদের ঘড়ি। সিলেটের এই দুটি স্থাপনা শুধু দেশেই নয়, বিদেশে সিলেটকে পরিচিত করেছে। ১৯৩৪ সাল। তখন বৃটিশদের শাসনে ছিল সিলেট। সিলেট ও আসামের গভর্নর মাইকেল ক্বীন। শহরের বুক চিড়ে বয়ে চলা সুরমার বুকে প্রথম ব্রিজ নির্মাণের উদ্যোগ নেন মাইকেল ক্বীন। বিশেষ ধরনের স্টিল-ধাতব দ্বারা তিনি সুরমার ওপর ব্রিজ নির্মাণ করেন। আর এটিই ছিল সিলেটের প্রথম ব্রিজ। এই ব্রিজ দিয়ে সব ধরনের যানবাহন চলাচল করতো। মুক্তিযুদ্ধের সময় এই ব্রিজটির একাংশ ভেঙ্গে ফেলা হয়েছিল। ফলে যোগাযোগও বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছিল সিলেটে। মুক্তিযুদ্ধের পর দেশ স্বাধীন হলে ফের ব্রিজটি মেরামত করা হয়। এবং ফের যানবাহন চলাচল শুরু করে। এরপর থেকে ক্বীন ব্রিজের আর কোনো মেরামত করা হয়নি। বেশ কয়েক বছর আগে ব্রিজটিতে ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। কেবল রিকশাসহ হালকা যানবাহন চলাচল করতো। এরপরও বর্তমানে ব্রিজের অবস্থা ভালো ছিল। ব্রিজের গার্ডার দুর্বল হয়ে পড়েছে। এতে করে ব্রিজটি ঝুঁকিতে রয়েছে, ইতিমধ্যে বিশেষজ্ঞদের মতামত পাওয়া গেছে। এদিকে সম্প্রতি সিলেট সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে ক্বীন ব্রিজ সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়। এর মধ্যে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী সিলেটের প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে এ নিয়ে আলোচনা করেন। আলোচনার প্রেক্ষিতে আগে থেকে ঘোষণা দিয়ে গত শনিবার মধ্যরাত থেকে সিলেটের ক্বীন ব্রিজে স্থায়ীভাবে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। রাত ১২টার আগে ক্বীন ব্রিজ এলাকায় যান সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। সঙ্গে যান সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রকৌশল বিভাগের কর্মকর্তারা। তারা গিয়ে ব্রিজের ওপর পাশে লোহার খুঁটি বসিয়ে দেন। এবং কেবলমাত্র মানুষ হেঁটে চলাচল করার পথ রাখা হয়েছে। মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী নিজেই চলাচলকারী যানবাহনকে ফিরিয়ে দেন। গতকাল রোববার সকালেও সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ব্রিজ এলাকা পরিদর্শন করেন। মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী জানান, ব্রিজটি জরাজীর্ণ হয়ে পড়ায় সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন এবং জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও সওজকে অবগত করে ক্বীন ব্রিজ দিয়ে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ব্রিজটির উপর দিয়ে এখন কেবলমাত্র পায়ে হেঁটে চলাচল করা যাবে। মেয়র জানান, ক্বীনব্রিজ হচ্ছে সিলেটের ঐতিহ্য। তাই এটিকে সংরক্ষণের লক্ষ্যে সংস্কার করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ক্বীনব্রিজকে দৃষ্টিনন্দন করার পাশাপাশি সিসি ক্যামেরারও আওতায় আনা হবে। যাতে এই ব্রিজে কেউ নিরাপত্তাহীনতায় না ভুগেন। ব্রিজটিকে পর্যটকদের জন্যও আকর্ষণীয় করে তোলা হবে বলে জানান মেয়র। এদিকে- সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী নুর আজিজুর রহমান জানিয়েছেন- আপাতত আমরা সেতুটিতে যানবাহন চলাচল বন্ধ রেখে সংস্কার কাজ চালাচ্ছি। এটির এখনো কোনো বরাদ্দ নেই। সিটি করপোরেশন থেকে ব্রিজের সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ চালানো হবে। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীকে সামনে রেখে এই সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ চালানো হবে। সিলেটের ঐতিহ্য হিসেবে ব্রিজটিকে তুলে ধরতে এই কাজ করা হচ্ছে। সিলেটের ক্বীন ব্রিজ ছাড়া আরো ৪টি ব্রিজ রয়েছে সুরমার ওপর। ক্বীন ব্রিজে যান চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ায় বাড়তি চাপ পড়েছে সিলেটের কাজিরবাজার সেতু ও উপশহরের শাহজালাল সেতুর ওপর। কাজিরবাজার ব্রিজ দিয়ে মাঝারি ও হালকা যানবাহন চলতে পারে। আর শাহজালাল উপশহর এলাকার ব্রিজ দিয়ে সব ধরনের যানবাহন চলাচল করতে পারে।



এ প্রতিবেদনটি .27 বার পঠিতসংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
0Shares